মোস্তাফিজুর রহমান
সিনিয়র রিপোর্টার
দৈনিক প্রথম বাংলা

নিজস্ব প্রতিবেদনঃধানের ব্লাস্ট রোগ খুবই ভয়ঙ্কর এবং দ্রুত ছড়িয়ে পরা এক রোগ। এতে আক্রান্ত ফসলের ৮০-১০০% পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত হয়।গত দুই-তিন বছর ধরে বাংলাদেশে শুরু হয়েছে এই ব্লাস্ট রোগ। কিন্তু এ বছর তা ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়তে দেখা যাচ্ছে ।কি কারণে বাংলাদেশের ধানের মড়ক ঘটানো হতে পারে ?
১৯৮৫ সালে ব্রাজিলে এই ব্লাস্ট রোগের কারণে ব্যাপক ফসলহানী ঘটতে থাকে। কৃষকরা হয়ে পড়েছে দিশেহারা। কৃষকের এই হতাশাকে পূজি করে ১৯৯৫-৯৬ এর দিকে দেশটিতে জিএমও প্রবেশ করায় বহুজাতিক কর্পোরেট কোম্পানিগুলো। বর্তমানে ব্রাজিল পৃথিবীর বৃহত্তম জিএমও উৎপাদক। একইভাবে এবার বাংলাদেশের কৃষিখাতে উদ্দেশ্যমূলকভাবে এই রোগ ছড়িয়ে দেয়া হতে পারে। এই রোগের ব্যাপক বিস্তারে কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে দিশেহারা হয়ে পড়বে এবং সেই সুযোগে জিএমও বা গোল্ডেন রাইস অফার করা হবে। বলা হবে “গোল্ডেন রাইসে কোন রোগ হয় না।” আর এই সুযোগে বাংলাদেশের কৃষি সেক্টর চলে যাবে বহুজাতিক কর্পোরেটদের দখলে। জিএমও বীজ বিক্রি করে বহুজাতিক কর্পোরেটরা ব্যবসা করবে, আর সেই চাল খেয়ে জনগণের মধ্যে ক্যান্সার বাড়বে, তখন ক্যান্সার চিকিৎসার মাধ্যমেও তারা টাকা কামাতে পারবে।

মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহ করে এখানে আপনার নাম লিখুন